আমার দেখা একজন ব্লগার / ইন্টারনেট মার্কেটারের সাফল্য

২০১২ এর দিকে আমার একটা এসইও ব্লগে, ইন্ডিয়ান এক ব্লগার আসতো কমেন্টে ব্যাকলিঙ্ক নিতে। (গুগল পেজ রেঙ্ক ২ সাইট ছিল) সে সুবাদে কমেন্টে রিপ্লাই দিতে গিয়ে তার সাথে পরিচয় হয়।

তার নাম ” আমান শাহ ” 🙂 বয়স ৩০ এর নিচে হবে 😉
পরে সে আমার পুরনো গুগল + এ কানেক্ট হয়। (Account Hacked)
মাঝে মাঝেই ব্লগিং এসইও নিয়ে আলাপ হতো। আমি নিজ থেকেই অনেক কিছু জিজ্ঞাস করতাম। তার সম্পর্কে এবং তার কাজের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইতাম। সে অনেক কিছুই খোলা মনে শেয়ার করতো। আমাদের মতো অহংকারী না। আমি জানি সে কাজে খুব বেস্ত থাকতো, কিন্তু অবসরে আমার প্রশ্নের রিপ্লাই দিতো।
মাঝে মাঝেই তাকে দেখলাম বিভিন্ন এসইও ব্লগে কমেন্ট করতেছে। (ব্যাকলিঙ্ক নিতো)
ওইসময় তার কিছু সাইট চিনেছিলাম, মধ্যে তার বড় সাইট থেকে মাসে ইনকাম আসতো ৫০০০ ডলারের উপরে। ( গুগল অ্যাডসেন্স থেকে) বস লোক 😀 ওই সময় আমি কামাই মাসে ১০০-২০০ ডলারের মতো 🙁  মাঝেখানে অনেক দিন কাজের চাপে যোগাযোগ করতে পারি নাই।
পরে ২০১৪ সালে ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপের সময় “ ব্ল্যাক হ্যাট এসইও “ করে টপে যাওয়ার কারনে, প্রতিদ্বন্দ্বীদের দ্বারা আমার ওই সাইটসহ, জি মেইল এবং সকল সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট হ্যাক হয়ে যায়। (ওই সময় যারা ফ্রেন্ড লিস্টে ছিলো, তারা জেনেছিল)
চরম একটা শিক্ষা পাইছিলাম 🙁 হ্যাকার টারে পাইলে একবার কুলাকুলি করতাম 😀  পরে আবার নতুন করে গুগল + ফেসবুক, টুইটার এবং স্কাইপি আইডি ওপেন করেছিলাম। অনলাইন কমুনিটিতে বাংলাদেশের ৩০০ জন এর কানেক্ট মতো ছিল। যাদেরকে আমার দরকার তাদের সাথেই শুধু কানেক্ট থাকতাম 😛 এখন ৪,০০০+

যাই হোক, এইসব বলে প্যাঁচাল লম্বা করে সময় নস্ট করতে চাই না। আসল কথায় আসি।
গতমাসে আমার পুরনো জি মেইলে লগিন করতে চেষ্টা করতেছিলাম 😛 গুগল ভেরিফিকেসনে আইডি আবার রিকবার হল 😀 গুগল+ এ গিয়ে দেখি ওই লোকের ১ বছর আগের  ম্যাসেজ 🙂 সে আমাকে ইমেল, গুগল + এবং স্কাইপি তে খুঁজার চেষ্টা করেছে। সে আমেরিকা চলে গেছে এবং সেখানেই থাকবে। কোনদিন যদি আমি ফিরে আসি, যেন তার সাথে কন্টাক্ট করি। (হায়রে মুহাব্বত)
আমি নিউ স্কাইপি তে তাকে রিকুয়েস্ট দিয়েই ম্যাসেজ দিলাম।
একদিন পরে সে রিপ্লাই দিলো, হেয় ম্যান সারপ্রাইস 😀
তারপরে সবকিছুই খুলে বললাম বর্তমান অবস্থাও জানালাম। আর আমার মতো অধমকে মনে রাখার জন্য, তাকে অনেক অনেক থ্যাংকস দিলাম। ভেবেছিলাম এতদিনে সে প্রিমিয়াম অ্যাডসেন্স পাবলিশার হয়েছে।
কিন্তু তার সেই পুরনো সাইট দেখে টাস্কি খাইলাম।৫০০০ ডলার মাসে কামানো সাইট পেনাল্টি খাইছে। এখন মাসে ৫০-১০০ ডলারও ওই সাইট থেকে আসে না।
তার বর্তমান অবসস্থা জানতে চাইলাম 🙂 সে এখন অনলি ১ টা হাই পেয়িং নিশ সাইট নিয়ে কাজ করে।


* অ্যাডসেন্স থেকে আয় করে ৫০০-৭০০ ডলার মাসে ( ৪০০০ ডলার+ মাসে ডাউন)
* এই সাইট দিয়ে সে অ্যাফিলিয়েট কমিশন পায় মাসে ২৫-৩০ হাজার ডলারের উপরে
(কেউ আমার মাথায় একটা বারি মারেন) 🙁 আমি এই জীবনে কি করলাম 🙁

এখন নাকি সে আর তেমন কাজ করে না। দিনে ১-২ ঘন্টা শুধু সাইট দেখাশুনা করে।
বিয়ে করে বউ নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমন করেই বেশি সময় কাটান। হায়রে ব্লগিং লাইফের সুখ…

আমার আর কিচ্ছু বলার ভাষা নাই 😛 অ্যাডসেন্স দিয়ে ৩-৪ হাজার ডলার আয় করতে  মাসে ১৫-২০ লাখ ট্রাফিক লাগে। আর সে মাসে ১ লাখ ট্রাফিক দিয়েই ২৫-৩০ হাজার ডলায় আয় করতেছে। হায়রে কপাল 😀 সাধে কি মানুষ বলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা এতো টাকার মালিক হয় কিভাবে 🙂
আরও একবার ধন্যবাদ ওস্তাদ 😀 আমিও আসতেছি অ্যাফিলিয়েট ব্লগ নিয়ে। ইনশাআল্লাহ্‌ বেচে থাকলে দেখা হবে বিজয়ে 😀

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *